হেফাজতের টাকার অপচয় ও সামাজিক দুঃখ

খবরে দেখলাম ২ লাখ ৯০ হাজার টাকা খরচ করে চট্রগ্রাম থেকে বগুরা গেলেন হেফাজতের সভাপতি আর মহাসচিব সাহেব হেলিকপ্টারে করে।

এখন কথা হলো এই টাকা গুলো কি সাভারের আহত ও নিহত পরিবারদের কে দিলে উনাদের আল্লাহ রাব্বুল আলামীন ইনাদের উপর রাগ করতো? উনাদের এই টাকা খরচ করা কি বিলাসিতা নয়? এমন করে টাকা খরচ করা কি ইসলামের দৃষ্টিতে অপচয় নয়?

আমি যতদূর জানি ইসলাম অপচয় কারীদের শয়তানের ভাই বলে উল্লেক্ষ্য করেছে। তাই হেফাজতীদের বলবো দয়া করে ইসলাম ধর্মকে নিয়ে ব্যবসা বন্ধ করুন। আর কতো ব্যবসা করবেন ধর্ম নিয়ে? আপনারা যাদেরকে ঢালাওভাবে নাস্তিক বলে উপাধি দিচ্ছেন তারা কিন্তু আপনাদের মতো ধর্ম ব্যাবসায়ীদের জন্য আপনাদের ইসলাম এবং আপনাদের নবীদের কে নিয়ে কটুক্তি করার সুযোগ পায়। আপনারা মধুর বতলে মদ বিক্রী করছেন। আর তারা ব্লগেদুইটা কথা লেখলেই আপনাদের গায়ে লাগে?

আপনারা পক্ষ নেন যুদ্ধাপরাধীদের, যারা বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের সময় দেশদ্রোহিতা করেছিলো, বিভিন্ন এলাকায় হত্যাজজ্ঞ চালিয়েছিলো, ধর্ষণ করেছিলো অসংখ্য মা-বোনদের। স্বাধীন দেশের মাটিতে দাঁড়িয়ে আপনারা যে বাংলা ভাষায় মৌজ করে ভাশন-মিছিল-মিটিং করছেন, আপনাদের তো লজ্জা হওয়া উচিত। চলে যাওয়া উচিত আপনাদের পেয়ারে পাকিস্থানে। এদেশে থাকবেন, জনগণের টাকায় মিছিল-মিটিং করবেন আবার এই দেশদ্রোহীদের পক্ষে কথা বলবেন, তা মানা যায়না।

আর আপনারা যে বলছেন শুধু নাস্তিকরাই শাহবাগে আন্দোলন করছে, আপনাদের এই তথ্য কে দিয়েছে? আপনারা কি গিয়েছিলেন শাহবাগে সবাই নাস্তিক না আস্তিক বিচার করতে? না গেলে তো জানার কথা নয়। আর গিয়েই যদি থাকেন, তাহলে কিভাবে বলেন শাহবাগের সবাই নাস্তিক? তাহলে তো আপনারাও ……। থাক, আর বললাম না। আপনাদের কর্মকাণ্ডগুলো কিন্তু সত্যি হাস্যকর। আর ধর্মের নামে যে সংখ্যালঘুদের ওপর অত্যাচার চালাচ্ছেন, এটা করার বৈধতা আপনাদের কে দিয়েছে? নিশ্চয়ই আপনাদের পবিত্র কোরান এই কথা বলেনি। আমিও তাই বিশ্বাস করতে চাই যে আপনারা শান্তির ধর্ম পালন করছেন। কিন্তু সত্যিকার অর্থে কিন্তু তা দেখতে পাইনা। এবং ঠিক এই কারনেই আপনাদের কে “বোকা” উপাধি দিয়েছি, ছাগু নামেও ডাকি। আপনাদের অবস্থা হলো এমন যে, কেউ এসে বললো চিলে কান নিয়ে গেছে আর আপনারা সেই চিলের পেছনে দৌড়াতে লাগলেন কান বাঁচানোর জন্য। দুঃখ হয় আপনাদের মতো ব্রেইনওয়াশড মানুষ এখনো দেশে আছে দেখে। সত্যি দুঃখজনক!