ময়মনসিংহ ও পটুয়াখালীর ১৩ জনের বিরুদ্ধে প্রতিবেদন চূড়ান্ত

হত্যা, গণহত্যা, নির্যাতন, অগ্নিসংযোগসহ একাধিক মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগে ময়মনসিংহ অঞ্চলের আটজন এবং পটুয়াখালীর পাঁচজনসহ মোট ১৩ জনের বিরুদ্ধে চূড়ান্ত প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের তদন্ত সংস্থা।

আজ বুধবার তদন্ত সংস্থার ধানমণ্ডি কার্যালয়ে এ প্রতিবেদন প্রকাশ করেন সংস্থার প্রধান সমন্বয়ক আবদুল হান্নান খান। এ সময় তদন্ত কর্মকর্তা সানাউল হক মিয়া উপস্থিত ছিলেন।

এ প্রতিবেদন আজ বিকেলের মধ্যে প্রসিকিউশনের কাছে জমা দেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন সংস্থার প্রধান সমন্বয়ক আবদুল হান্নান খান।

ময়মনসিংহ অঞ্চলের আটজনের মধ্যে মো. রেজাউল করিম (৬৫), এ বি এম ইউনুছ আলী (৬৫), মো. ওমর ফারুক (৭০), মো. ইউসুফ আলী (৬২) এই চারজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। অন্যদিকে নাসির উদ্দিন (৬৪), মো. ইসমাইল (৬৪), এ কে এম বেলায়েত হোসেন (৬৪), কাজী বদরুজ্জামান (৬৫) এই চারজন পলাতক।

পটুয়াখালীর পাঁচজন হলেন মো. এছাহাক সিকদার (৮৩), আবদুল গনি হাওলাদার (৭২), মো. আউয়াল (৬৯), মো. আবদুস সাত্তার প্যাদা (৬৫) ও সোলায়মান মৃধা (৮৬) এই পাঁচজনই কারাগারে আছেন।

ময়মনসিংহ অঞ্চলের আটজনের বিরুদ্ধে চারখণ্ডে ৪২২ পৃষ্ঠার প্রতিবেদনে আটটি অভিযোগ আনা হয়েছে। এই মামলায় ২০১৫ সালের ১ মে থেকে তদন্ত শুরু করে ২০১৬ সালের ৪ মে পর্যন্ত তদন্ত শেষ করে প্রতিবেদন চূড়ান্ত করা হয়। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা (আইও) মো. মতিউর রহমান ও মো. রুহুল আমিন। তাঁদের বিরুদ্ধে সাক্ষী ৪৬ জন রাখা হয়েছে।

অপরদিকে পটুয়াখালীর পাঁচজনের বিরুদ্ধে ৫০৮ পৃষ্ঠার তদন্ত প্রতিবেদনে ১৫ জন নারীকে ধর্ষণসহ সম্মিলিতভাবে ১৭টি অভিযোগ আনা হয়েছে। এই মামলায় তদন্ত কর্মকর্তা (আইও) সত্য রঞ্জন রায়। মামলার তদন্ত শুরু হয়েছে বলে জানান তদন্ত সংস্থার কর্মকর্তারা।